ক্রোধ বা রাগ হলো একটি স্বাভাবিক অনুভূতি। প্রতিটি মানুষেরই রাগ অনুভূতি বিদ্যমান। রাগ তখনই সমস্যাযুক্ত হয়ে উঠে যখন তা নিয়ন্ত্রণের বাহিরে চলে যায়।
আসুন ক্রোধ বা রাগ নিয়ন্ত্রণের কিছু কৌশল বা উপায় সম্পর্কে আমরা জেনে নেই। যদিও ব্যাপারটি বেশ জটিল তারপরও আমাদের মঙ্গলের জন্যই এই কৌশলগুলি জেনে রাখা উচিত।

কৌশল নং- ১ঃ শরীরের পেশীগুলো শিথিল করুন।
মানুষ যখন রেখে যায় তখন তার শরীরের পেশীগুলো টান টান হয়ে যায়, এর থেকে মুক্তি হিসেবে আপনি ইচ্ছাকৃত নিঃশ্বাস নিন- ধীর থেকে লম্বা নিঃশ্বাস নিন। আপনার উত্তেজান বা রাগ আস্তে আস্তে কমে আসবে।

কৌশল নং- ২ঃ আনন্দঘন কোন শব্দ, কথা বা সময়কে বার বার স্মরণ করুন।
আপনার জীবনের কোন আনন্দপূর্ণ সময়ের কোন ঘটনাকে স্মরণ করুন। হতে পারে সেটি কোন একটি সময় বা কোন একজন ব্যক্তি। বারবার সেই সময় বা ব্যক্তিকে উপলব্ধি করুন এবং নিজেকে বোঝান “আমি রাগবো না”, “আমি কিছুতেই রাগবো না”, “আমি সুস্থ্য আছি”- এরকম ভালো কিছু কথার মধ্যে দেখবেন আপনার রাগ ধীরে ধীরে কমে আসবে।

কৌশল নং- ৩ঃ মানসিকভাবে পালানো।
শান্ত একটি ঘরে চোখ বন্ধ করে শুয়ে পড়ুন- কাল্পনিক কোন সুন্দর দৃশ্যকে সামনে আনুন- যেমন হতে পারে শান্ত নদীতে পড়ন্ত বিকেলের সূর্যের সুন্দর দৃশ্য, হতে পারে গাছগাছালিতে সকালের পাখিদের কিচিরমিচিরের শব্দ, আবার হতে পাহাড়টি কত বিশাল কিন্তু কত শান্ত হয়ে দাড়িতে আছে। এই অনুশীলনে আপনার রাগ শান্ত হয়ে স্বাভাবিক হতে সহায়তা করবে।

কৌশল নং- ৪ঃ কথা বন্ধ করুন।
আপনি যখন রাগান্বিত হন তখন আপনার ভিতর থেকে কথার ফুলঝুড়ি বেড়িয়ে আসে বা আসতে চায়। এই অবস্থায় আপনি আপনার ঠোটকে কঠিন মনোবলে একেবারে বন্ধ করে ফেলুন, দেখবেন এতে আপনার রাগ অনেকটা কমে আসবে।

কৌশল নং- ৫ঃ তাৎক্ষনিক সমাধান খোঁজার চেষ্টা করুন।
আপনি রেগে গেছেন যে- আপনার সন্তান তার বন্ধুর সাথে দেখা করতে যাবার আগে তার ঘরটি আগোছালো করে রেখে গেছে। তখন আপনি ক্রোধের দৃষ্টিভঙ্গি কে খুঁজে বের করুন- আপনি ভাবুন না আমিওতো এক সময়ে ছোট ছিলাম এবং এরকম আমারও হয়েছে। দেখবেন আপনি শান্ত হয়ে গেছেন- আপনিই তার বিছানাটি ঠিক করে দিয়েছেন।

কৌশল নং- ৬ঃ কাছাকাছি ঘুরে বেড়ান।
আপনি রেগে গিয়েছেন- বেশতো আপনি আশপাশে পায়চারি করতে থাকুন অথবা  আপনার ব্যাট দিয়ে ছাদে  ঝুলানো বলকে বেশ কয়েকবার আঘাত করুন। দেখবেন আপনার রাগ অনেকাংশেই কমে আসবে।

কৌশল নং-০৭ঃ উল্টো গণনা শরু করুন।
প্রথমে ১০ থেকে নীচের দিকে নামুন, যদি দেখেন রাগ কমছে না- তবে ১০০ থেকে নীচের দিকে নামুন। দেখবেন আপনার হৃদস্পন্দন কমে এসেছে এবং আপনার রাগ বা ক্রোধ কমে গিয়েছে।

পরিশেষে বলা যায়, রাগ বা ক্রোধ একটি সাধারণ আবেগ বৈত অন্য কিছু নয়। এতে ভয় না পেয়ে আপনার মনকে ঐ মূহুর্তে শান্ত রাখতে হবে। আপনি যদি মনে করেন যে, আপনার রাগ খারাপের দিকে যাচ্ছে তবে আপনাকেই রাগ কমানোর স্বাস্থ্যকর উপায়গুলি খুঁজে বের করতে হবে। উপরের টিপসগুলো যদি আপনাকে সহায়তা না দিতে পারে তবে আপনার ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে। হতে পারে তিনি একজন মানসিক স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ বা থেরাপিস্ট।